www.bongobanii.com, www.bongobanii.com, www.bongobanii.com, www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com, শালবনি কোবরা ক্যাম্পে জওয়ানের আত্মহত্যা, করোনায় মৃতদের পরিবারকে দিতে হবে ক্ষতিপূরণ, কেন্দ্রকে নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের, কসবা কাণ্ডে অভিযুক্ত দেবাঞ্জন দেবকে মনোরোগী বলে দাবি করলেন আইনজীবী, বালি তোলা সহ নানা সমস্যার সমাধান করতে হবে বৈঠকে বললেন মন্ত্রী মানস ভুঁইয়া, পরিত্যক্ত পিপিই কিট পরে শহরের রাস্তায় ঘুরছে মানসিক ভারসাম্যহীন, আতঙ্ক মেদিনীপুরে, জনপ্রিয় অভিনেতা বর্তমানে মাছ ব্যবসায়ী,

Latest Trending Online News Portal : Bongobani.com

Sports News District News National News Updates

এই মুহূর্তে দেশ

খুদের মন কি বাত সরাসরি প্রধানমন্ত্রীকে

বঙ্গবাণী ব্যুরো নিউজ :” পৃথিবীটা নাকি ছোটো হতে হতে স্যাটেলাইট আর কেবিলের হাতে…” গানটা ভীষণ প্রাসঙ্গিক আজও। স্কুল, কলেজ, পড়তে যাওয়া যখন বন্ধ তখন শুধুই ভার্চুয়্যাল ক্লাসে ফোনে মাথা গুঁজে বসে আছে একটা জেনারেশন। তবে ফোনে মুগ্ধ হয়ে নয়, বরং বিরক্তি নিয়ে ফোন ঘাঁটছে দুনিয়া। কিন্তু নালিশ কার কাছে করা যায়? এটাই তো বিশ্বের সার্বিক পরিস্থিতি । ঠিক এমনই সময়ে এক খুদের প্রশ্ন সরাসরি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে ।এত পড়াশোনা আর হোমওয়ার্ক কেন দেওয়া হচ্ছে? ছ’বছরের এক কাশ্মীরী খুদের এই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করতেই ভাইরাল হয়ে যায়

ওই ভিডিওতে খোদ প্রধানমন্ত্রী মোদীকে খুদে প্রশ্ন করেছে, ‘ছ’বছরের ছোট বাচ্চাদের ম্যাড়াম ও টিচারেরা কেন এত বেশি কাজ দেন? এত বেশি কাজ হয় আসলে বড় বাচ্চাদের।’ নিজের প্রসঙ্গে খুদে বলছে, ‘আমি যখন সকালে উঠি… ১০ টা থেকে দুপুর ২ টো পর্যন্ত ক্লাস হয়। প্রথমে ইংরাজি, তারপর অঙ্ক, উর্দু, ইভিএস, কম্পিউটার।…ছোট বাচ্চাদের কেন এত কাজ দেওয়া হয় মোদী সাহেব?’

১ মিনিট ১১ সেকেন্ডের খুদের এই ভিডিও টুইটারে সাড়া ফেলে দিয়েছে। কেউ খুদের পাকামি, বা বাচ্চামি দেখে আনন্দ নিচ্ছেন, কেউ আবার বিষয়টা যথেষ্ট গুরুগম্ভীর ভাবে দেখছেন। সত্যিই তো, আচ্ছা আচ্ছা বড়ো মানুষদের অনলাইন কাজ করতে অসুবিধার সম্মুখীন হতে হয়, কত জিনিস এখনও অজানা অধরা হয়ে থাকে। তাহলে বাচ্চাদের পক্ষে সবটা সামাল দেওয়া সম্ভব কী করে হয়।

এমনিতেই পড়ার বইতে মন দেবে নাকি ফোনের স্ক্রিনে মন দেবে তাই নিয়েই দিশেহারা সকলেই থাকে। আর একদিনে পাঁচ ছয়টা অনলাইন ক্লাস করে কারই বা মন চায় রোজ করতে? খুদের ট্যুইটার ভিডিওতে বেশ সাড়া মিলেছে। দীপালি দেশাই নামে এক টুইটার ব্যবহারকারী লিখছেন, ‘গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট। শেখার মতো কিছু। আমরা বড়রা এক ঘন্টার মধ্যে জুম মিটিং-এ ঠিক ভাবে মন দিতে পারি না। সেখানে আমরা বাচ্চাদের থেকে কী ভাবে এটা আশা করতে পারি?’

একইসাথে অনিল শর্মা নামে অপর এক টুইটার ব্যবহারকারী লিখেছেন, ‘বাচ্চাটি খুব গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট তুলে ধরেছে। আমাদের বাচ্চাদের খুব তাড়াতাড়ি শিক্ষিত করতে চাই। আমরা আসলেই তাদের শৈশব কেড়ে নিয়েছি। ছোট্ট বাচ্চা তোমাকে কুর্নিশ। তোমার সারল্য যে কারও হৃদয় গলিয়ে দিতে পারে।’ এবার দেখা যাক মন কি বাত বলায় ছোট্ট খুদের মোদী ‘সাহেব’ কোনো উত্তর পৌঁছে দেন কিনা কাশ্মীরী খুদের কাছে।

LEAVE A RESPONSE

Your email address will not be published. Required fields are marked *