Latest Trending Online News Portal : Bongobani.com

Sports News District News National News Updates

এই মুহূর্তে জেলা

পরিবহন স্থগিত!বাজারমূল্য বৃদ্ধিতে মাথায় হাত মধ্যবিত্তদের

বঙ্গবাণী ব্যুরো ডেস্ক: রাজ্যে বন্ধ হয়েছে লোকাল ট্রেনের পরিষেবা।পূর্ণ লকডাউনের আগাম আশঙ্কায় সমস্ত বাজার হয়তো আবার বন্ধ হবে তাই অনেকেই বাড়িতে বাড়তি সবজি মজুত করছেন যার মধ্যে রয়েছে আলু ,পেঁয়াজ, আদা, রসুন ইত্যাদি। মাথায় হাত মধ্যবিত্ত থেকে নিম্নবিত্তদের!

সাধারণত লোকাল ট্রেনে আশপাশের গ্রাম থেকে বাজারে আসে শাকসবজি বিক্রেতারা ট্রেন বন্ধ থাকায় তাদের ভরসা এখন ভাড়া করা গাড়ি। তার উপরে সেই সমস্ত জিনিস বাজারে বিক্রি করার জন্য তাদের হাতে বেঁধে দেয়া হয়েছে নির্দিষ্ট সময়সীমা। তাতেই চড়া হচ্ছে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম। আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে ক্রেতা-বিক্রেতা দুজনেই। আগামী দিনে কি পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যেতে হবে মানুষকে এখন সেই আতঙ্কই কাজ করছে সকলের মনে। সকলের এখন একটাই প্রশ্ন, ” রাজ্যে আংশিক লকডাউনে যদি নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের মূল্য এত বেশি হয় তাহলে আগামী দিনে করোনার তৃতীয় ঢেউ এলে কি পরিস্থিতি সৃষ্টি হবে? কারণ পরিবহন বা ট্রেন যদি এভাবে বন্ধ থাকে দিনের পর দিন তাহলে বাজারে কাঁচামালের জোগান আসবে কোথা থেকে?”

মধ্য কলকাতার একজন সবজি বিক্রেতা রানা মন্ডলের কথায়,” মানুষের চাহিদা এবং জোগানে এই দুটোতে যদি সামঞ্জস্য না থাকে তাহলেতো বাজারের প্রতিটি জিনিসের দাম অগ্নিমূল্য হবেই”। অন্যদিকে শহরের একজন খুচরা বিক্রেতা পিন্টু সরকার জানান,” আমরা পাইকারি বিক্রেতাদের কাছ থেকে যে দামে জিনিস কিনব তারপরে আমাদের লভ্যাংশটুকু রেখেই তো কে তাদের কাছে বিক্রি করব ।এখানে তো আমাদের কোনো হাত নেই। আমাদেরও তো সংসার রয়েছে।”

অন্যদিকে, বাজারে আসা এক ক্রেতা অভিযোগ করে বলেন ,” এভাবে হঠাৎ ট্রেন বন্ধ করে দেওয়ার ফলে বাজারে চড়াও হচ্ছে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম ।আগামী দিন যা আসছে তাতে আরোও শোচনীয় হতে পারে আমাদের অবস্থা।এমনিতেই এখন আমাদের রোজগারের পরিমাণ কমে গেছে তার উপরে এরকম অবস্থা হলে এরপরে আমরা কি করে দিন কাটাবো জানি না।”

একদিকে যখন চিকিৎসক থেকে শুরু করে বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দিচ্ছেন এই সময় অস্বাস্থ্যকর খাবার ছেড়ে স্বাস্থ্যকর খাবারের প্রতি নজর দিতে সেই সময়ে বাজারে সুষম যে সমস্ত খাদ্য যেমন শাকসবজি, ফলমূলের দাম যেভাবে আকাশছোঁয়া হচ্ছে সেক্ষেত্রে মানুষের এখন কি করনীয় ,কী বা করা উচিত তাদের সেই বিষয়েই এখন প্রশ্ন জাগাচ্ছে সকলের মনে।

LEAVE A RESPONSE

Your email address will not be published. Required fields are marked *