Latest Trending Online News Portal : Bongobani.com

Sports News District News National News Updates

এই মুহূর্তে

কলকাতা মেডিকেল কলেজ থেকে টসিলিজুম্যাব ইনজেকশন উধাও এর রিপোর্ট জমা পড়ল স্বাস্থ্যদপ্তরে

বঙ্গবাণী ব্যুরো নিউজ : হঠাৎ করে কলকাতা মেডিকেল কলেজ থেকে করোনা চিকিৎসার জীবনদায়ী ওষুধ টসিলিজুম্যাব ইনজেকশন উধাও হয়ে গেল। উধাওয়ের ঘটনায় জোড়া তদন্ত কমিটির রিপোর্ট জমা পড়ল স্বাস্থ্য দপ্তরে। সেই রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে নিয়মবহির্ভূতভাবে কলকাতা মেডিকেল কলেজের স্টোর থেকে এই জীবনদায়ী ওষুধ তুলে নেওয়া হয়। অভিযোগের আঙুল উঠেছে এক মহিলা মেডিকেল অফিসারের দিকে।
গত বুধবার এই টসিলিজুম্যাব ইনজেকশন প্রায় ২৬ টির মতো উধাও হয়ে যায়। করোনা চিকিৎসার জীবনদায়ী এই ওষুধের বাজারমূল্য প্রায় ১১ লক্ষ টাকা।


স্পেসিমেন এক্সামিনেশন ফর্ম অর্থাৎ যা ল্যাবরেটরীতে রোগীর নমুনা পরীক্ষা করতে পাঠানোর কাগজ, তাতে কিভাবে এই ওষুধ চেয়ে লিখে পাঠানো হলো এবং সে কাগজ দেখার পরও স্টোর থেকে কিভাবে ওষুধ দেওয়া হলো তা নিয়ে রীতিমতো প্রশ্ন উঠে আসে।
অভিযোগ অনুসারে এক মহিলা নিজেকে ক্রিটিক্যাল কেয়ার এর নার্স পরিচয় দিয়ে অন্য এক ভদ্রমহিলা কে ‘দিদি’ সম্বোধন করেছেন। বলেছেন যে ২৬ টি টসিলিজুম্যাব ইঞ্জেকশন নিয়েছেন তা রিসিভ করে নিতে। উত্তরে ওই ভদ্রমহিলা বলেছেন, তিনি সোমবার আসবেন। করে দেবেন ‌।

মেডিকেল কলেজের এই ঘটনা নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়াতেও শুরু হয়ে যায় হইচই। মুখ্যমন্ত্রী নির্দেশ দেন এই ঘটনার সঠিক তদন্ত করার জন্য ।স্বাস্থ্য ভবনের তরফে এই ঘটনার গুরুত্ব অনুযায়ী জোড়া তদন্ত কমিটি তৈরি করা হয়। একটি কমিটি ৭ জনের ,আরেকটি ৩ জনের কমিটি । ঘটনা সপ্তাহখানেকের মধ্যে এই জোড়া কমিটি স্বাস্থ্য ভবনে জমা করলেন তাদের তদন্তের রিপোর্ট যাতে বলা হয়েছে রিকুইজিশন ছাড়াই নিয়মবহির্ভূতভাবে মেডিকেল কলেজ থেকে তুলে নেওয়া হয়েছে ২৬টি টসিলিজুম্যাব ইনজেকশন।
সাধারণত সিসিইউতে থাকা কোন রোগের জন্য ইনজেকশন প্রয়োজন হলে রোগীর নাম ঠিকানা লিখে সিনিয়র মেডিকেল অফিসার কিংবা সিসিইউ স্পেশালিস্ট ডাক্তারের সই করা নথির ভিত্তিতে সেই ইনজেকশন পাওয়া যায়। কিন্তু এখানে সেই মহিলার সই বা নথি নিয়েই সমস্যা। আরও একটি প্রশ্ন উঠে আসছে যে একসঙ্গে এতগুলো ইনজেকশন প্রয়োজন হলেই বা কেন?
আর সেখানেই তদন্ত কমিটির সদস্যরা নিয়ম ভাঙ্গার প্রমাণ দেখতে পাচ্ছেন। স্বাস্থ্য দপ্তর থেকে এই রিপোর্ট নবান্নে পাঠানো হবে ।তারপর এই ঘটনায় জড়িতদের কি শাস্তি হবে তা ঠিক করবেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

LEAVE A RESPONSE

Your email address will not be published. Required fields are marked *