হুল উৎসব থেকে তির-ধনুক নিয়ে হামলা, তিরবিদ্ধ উপ-প্রধানের ভাই, শালবনি কোবরা ক্যাম্পে জওয়ানের আত্মহত্যা, করোনায় মৃতদের পরিবারকে দিতে হবে ক্ষতিপূরণ, কেন্দ্রকে নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের, কসবা কাণ্ডে অভিযুক্ত দেবাঞ্জন দেবকে মনোরোগী বলে দাবি করলেন আইনজীবী, বালি তোলা সহ নানা সমস্যার সমাধান করতে হবে বৈঠকে বললেন মন্ত্রী মানস ভুঁইয়া, পরিত্যক্ত পিপিই কিট পরে শহরের রাস্তায় ঘুরছে মানসিক ভারসাম্যহীন, আতঙ্ক মেদিনীপুরে, জনপ্রিয় অভিনেতা বর্তমানে মাছ ব্যবসায়ী, হলফনামা জমা দেবার ক্ষেত্রে জরিমানা দিতে হল পাঁচ হাজার টাকা, আজ ঘোষণা হতে পারে নারদ মামলার রায়, বুধবার থেকে পনেরো শতাংশ ভাড়া বাড়ছে ওলা উবেরের,

Latest Trending Online News Portal : Bongobani.com

Sports News District News National News Updates

এই মুহূর্তে জেলা

নির্বাচনের দিনে এক অনন্য নজির নিউ ব্যারাকপুরে

বঙ্গবাণী ব্যুরো ডেস্ক:- নির্বাচন মানেই হিংসা, মারামারি, বোমাবাজি,গুলি চালানো আক্ষরিক অর্থে বাংলার মানুষ একথাই জানে।একে ওপরের বিরুদ্ধে বিষোদগার করা একথা বাংলার মানুষের কাছে চেনা।তবে সিপিএম প্রার্থী তন্ময় ভট্টাচার্যের এ ছবি বাংলার মানুষের কাছে বেশ কিছুটা হলেও অপিরিচিত। ভোট চলছে,তিনি ঘুরছেন নিউ ব্যারাকপুরের বিভিন্ন এলাকায় হঠাৎই তৃণমূলের বুথ ক্যাম্পের সামনে এসে দেখলেন দলীয় কর্মীদের জন্য রাখা রয়েছে লুচি ,মিষ্টি, আলুর তরকারি। দেরি না করেই সঙ্গে সঙ্গে বসে পড়লেন তৃণমূলের বুথ ক্যাম্পের সামনেই।সংযুক্ত মোর্চার সিপিএমের প্রার্থী হয়েও কোনোরকম মনে দ্বিধা বদ্ধ না রেখে তিনি তৃণমূলের বুথ কর্মীদের জন্য আনা টিফিন একসঙ্গে বসেই খেলেন এমনকি ছবিতে একসঙ্গে পোজও দিলেন।তারপর তিনি বললেন,”আমাদের এখানে পারস্পরিক সম্পর্ক খুবই ভালো।রাজনীতিতে কেউ বিজেপি করতে পারে কেউ তৃণমূল করতে পারে,কেউ বা সিপিএম করতেই পারে ।কিন্তু নিউ ব্যারাকপুর সংস্কৃতির দিক থেকে ,শিক্ষার দিক থেকে, রুচির দিক থেকে পশ্চিমবঙ্গের মধ্যে সবথেকে অগ্রসর এলাকা নিউ ব্যারাকপুর।এই অঞ্চলের যে কোনো তৃণমূল কর্মী রাস্তা দিয়ে খেলে আমি যদি তার গায়ে হাত দি ও কিন্তু কিছুই বলবে না,এটাই আমাদের সংস্কৃতি। আর এই ধরনের সংস্কৃতির জন্যই আমরা সব দল গর্ব অনুভব করি”।এছাড়াও তাঁর কথায়,”আমি গত ৫ বছর এম এলে ছিলাম আমি সমস্ত মাধ্যমিক উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে সংবর্ধনা দি।কিন্তু একজনও তৃণমূল বা অন্যান্য যে কোনো দলীয় কর্মী আমাকে কখনও বাধা দেয়নি।আবার তৃণমূল কংগ্রেসেরও কেউ বলতে পারবে না একটা সার্টিফিকেটের জন্য আমার কাছে কেউ রিফিউজ হইছে। এটাই আমাদের নিউ ব্যারাকপুরে সংস্কৃতি ।We are proud for our culture “।

সংযুক্ত মোর্চার প্রার্থী তন্ময় ভট্টাচার্যকে ঘিরে সমস্ত দলীয় কর্মীদের আনন্দে উত্তেজনা ছিল চোখে পড়ার মতো। ছবি তোলার জন্য রীতিমতো তাড়াহুড়ো লেগে যায় উপস্থিত আমজনতার মধ্যে। হাসিমুখে সে আবদারও মেটায় সংযুক্ত মোর্চার সিপিএমের প্রার্থী তন্ময় ভট্টাচার্য।ওখানে উপস্থিত একজন তৃণমূল দলীয় কর্মী তো শেষমেশ বলেই ফেললেন,” দাদা আমি তৃণমূল কর্মী কিন্তু তোমার আশীর্বাদের হাত সবসময় আমি মাথায় করে রাখি”।সত্যি বঙ্গে ভোটের এই নজিরবিহীন দৃশ্য অত্যন্ত বিরল।

LEAVE A RESPONSE

Your email address will not be published. Required fields are marked *