হুল উৎসব থেকে তির-ধনুক নিয়ে হামলা, তিরবিদ্ধ উপ-প্রধানের ভাই, শালবনি কোবরা ক্যাম্পে জওয়ানের আত্মহত্যা, করোনায় মৃতদের পরিবারকে দিতে হবে ক্ষতিপূরণ, কেন্দ্রকে নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের, কসবা কাণ্ডে অভিযুক্ত দেবাঞ্জন দেবকে মনোরোগী বলে দাবি করলেন আইনজীবী, বালি তোলা সহ নানা সমস্যার সমাধান করতে হবে বৈঠকে বললেন মন্ত্রী মানস ভুঁইয়া, পরিত্যক্ত পিপিই কিট পরে শহরের রাস্তায় ঘুরছে মানসিক ভারসাম্যহীন, আতঙ্ক মেদিনীপুরে, জনপ্রিয় অভিনেতা বর্তমানে মাছ ব্যবসায়ী, হলফনামা জমা দেবার ক্ষেত্রে জরিমানা দিতে হল পাঁচ হাজার টাকা, আজ ঘোষণা হতে পারে নারদ মামলার রায়, বুধবার থেকে পনেরো শতাংশ ভাড়া বাড়ছে ওলা উবেরের,

Latest Trending Online News Portal : Bongobani.com

Sports News District News National News Updates

এই মুহূর্তে

শালবনি নোট মুদ্রণ কেন্দ্রে ৩৪ করোনা সংক্রমিত, ৭ দিন লকডাউন টাঁকশালে

বঙ্গবাণী ব্যুরো ডেস্ক,পশ্চিম মেদিনীপুরঃ- ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্কের শালবনি নোট মূদ্রণ কেন্দ্রে ৩৪ জন কর্মী করোনা আক্রান্ত। আরও বেশ কয়েেক জনের মৃদু উপসর্গ রয়েছে। তাঁদেরও নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। করোনার প্রথম ঢেউকে টপকে দ্বিতীয় ঢেউয়ের সংক্রমণ। কর্মচারিদের পাশাপাশি কয়েকজন সিআইএসএফ জওয়ানও সংক্রমিত হয়েছেন বলে জানাগেছে। পরিস্থিতি দেখে ৭ দিন শালবনি নোট মুদ্রণ কেন্দ্রের টাউনশিপ এলাকায় লকডাউনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন কর্তৃপক্ষ। শুধুমাত্র জরুরি পরিষেবা ছাড়া  টাঁকশালের সব কাজ বন্ধ। জেলায় একদিনে সংক্রমিত ২৩৬ জন। 

এদিকে শালবনি বিধানসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী শ্রীকান্ত মাহাতোর করোনা সংক্রমন ধরা পড়েছে। বর্তমানে তিনি হোম আইসোলেশনে আছেন। দলীয় সূত্রে খবর, নিজের কেন্দ্রে ভোট মিটে যাওয়ার পর রাজ্যের অন্যান্য কেন্দ্রের প্রার্থীদের প্রচারে গিয়েছিলেন শ্রীকান্ত। গত রবিবার আসানসোল এলাকায় তৃণমূল পার্থীর সমর্থনে প্রচারে গিয়েছিলেন। কিছু উপসর্গ দেখা দিলে করোনা পরীক্ষা করা হয়। সোমবার তাঁর পজিটিভ রিপোর্ট আসে।    

এক সঙ্গে এত জনের সংক্রমনে আতঙ্ক ছড়িয়েছে নোট মুদ্রণ কেন্দ্রের ভেতরে থাকা কর্মচারি, আধিকারিক ও তাঁদের পরিবারের সদস্যদের মধ্যে। সুত্রের খবর, দু-দিন আগে নোট মুদ্রণ কেন্দ্রের এক আধিকারিকের স্ত্রী শ্বাসকষ্ট নিয়ে মারা গেছেন। শালবনি থেকে মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে তাঁর মৃত্যু হয়। যদিও তাঁর করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছিল। ঘটনার পর মৃতার স্বামীর করোনা পরীক্ষা করা হলে, তাঁরও রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। ভাইরাসের নতুন রূপে আতঙ্কিত সকলেই।

জানা গিয়েছে, নোট মুদ্রণ কেন্দ্রের কম্পাউন্ডের ভেতরে সাড়ে তিন থেকে চার হাজার জন বসবাস করেন। দিন দশেক আগে নোট মুদ্রণ কেন্দ্রের একজন কর্মচারির করোনা সংক্রমন ধরা পড়ে। তারপর তাঁর সংস্পর্শে আসা অন্যান্য কর্মীদের নমুনা পরীক্ষা করা হলে এক সঙ্গে ৭ জনের সংক্রমণ ধরা পড়ে। গত ১০ দিনে নোট মুদ্রণ কেন্দ্রে ৩৪ জন সংক্রমিত হয়েছেন। বেশকিছু জনের মৃদু উপসর্গ লক্ষ করা যাচ্ছে। রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত তাঁদের অবজারভেশনে রাখা হয়েছে।  শালবনি নোট মুদ্রণ কেন্দ্রে এমপ্লিজ ইউনিয়নের সহ সভাপতি, তথা জেলা পরিশদের কর্মাধ্যক্ষ নেপাল সিংহ বলেন, ‘কদিনে বেশ কয়েক জনের পজিটিভ হয়েছে। কর্মচারি ও তাঁদের পরিবার আতঙ্কে আছেন। পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য ইউনিয়নের পক্ষ থেকে কর্তৃপক্ষের কাছে সোমবার একটি ডেপুটেশনও দেওয়া হয়েছে।’

পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় একদিনে সংক্রমণ ২৩৬ জন। মৃত্যু ৩ জনের। পুলিশ ও প্রশাসনের পক্ষ থেকে সচেতনতা প্রচার করা হচ্ছে। লক্ষ্য করা যাচ্ছে কদিনে মাস্কের ব্যবহার বেড়েছে। দেখা যাচ্ছে, দূরত্ববিধি মানাতে বাজারে বাজারে, দোকানের সামনে আবার গন্ডি কাটা হচ্ছে। আতঙ্কে ভিড় কমছে বিভিন্ন বাজারে।

LEAVE A RESPONSE

Your email address will not be published. Required fields are marked *