হুল উৎসব থেকে তির-ধনুক নিয়ে হামলা, তিরবিদ্ধ উপ-প্রধানের ভাই, শালবনি কোবরা ক্যাম্পে জওয়ানের আত্মহত্যা, করোনায় মৃতদের পরিবারকে দিতে হবে ক্ষতিপূরণ, কেন্দ্রকে নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের, কসবা কাণ্ডে অভিযুক্ত দেবাঞ্জন দেবকে মনোরোগী বলে দাবি করলেন আইনজীবী, বালি তোলা সহ নানা সমস্যার সমাধান করতে হবে বৈঠকে বললেন মন্ত্রী মানস ভুঁইয়া, পরিত্যক্ত পিপিই কিট পরে শহরের রাস্তায় ঘুরছে মানসিক ভারসাম্যহীন, আতঙ্ক মেদিনীপুরে, জনপ্রিয় অভিনেতা বর্তমানে মাছ ব্যবসায়ী, হলফনামা জমা দেবার ক্ষেত্রে জরিমানা দিতে হল পাঁচ হাজার টাকা, আজ ঘোষণা হতে পারে নারদ মামলার রায়, বুধবার থেকে পনেরো শতাংশ ভাড়া বাড়ছে ওলা উবেরের,

Latest Trending Online News Portal : Bongobani.com

Sports News District News National News Updates

এই মুহূর্তে রাজ্য

কেন্দ্র, সংবিধান, গণতন্ত্র, রাজ্যপালের সঙ্গে সবসময় সংঘাত করে লাভ নেই জানালেন রাজ্যপাল

বঙ্গবাণী ব্যুরো নিউজ: উত্তরবঙ্গকে আলাদা রাজ্য হিসেবে দেখতে চান উত্তরবঙ্গবাসীরা এমনই দাবি করেছিলেন জন বার্লা। কিন্তু বঙ্গভঙ্গের মতন বিষয় নিয়ে মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী কেন নীরব?— প্রশ্ন রাজ্যপালের।

দিল্লি সফর শেষ করে আসার পর সোমবার সকালে উত্তরবঙ্গ সফরে যান রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। পশ্চিমবঙ্গের অবস্থা বিবেচনা করে তিনি প্রশ্ন করেছেন “আরো চারটি রাজ্যে তো নির্বাচন হয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের এমন অবস্থা হবে কেন? সরকারি লক্ষ্য হওয়া উচিত বিকাশ। আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে রাজ্যের মানুষ। প্রশাসনের তরফ থেকে কেউ পাশে দাঁড়ায়নি। ভয়ঙ্কর অরাজকতা চলছে, আর সরকার চোখ বুজে আছে। অভিযুক্তরাও কেউ গ্রেফতার হয়নি। সরকারকে বলব বিষয়গুলি নিয়ে ভেবে দেখতে।” এমনিতেই জন বার্লার বঙ্গভঙ্গের দাবি নিয়ে ব্যস্ত রাজনৈতিক মহল। জন বার্লার মতে উত্তরবঙ্গবাসীদের কথা মুখ্যমন্ত্রী শোনেন না, ফলেই উন্নয়ন থেকে বঞ্চিত উত্তরপ্রদেশ। অন্যদিকে আবার জন বার্লার সমস্ত দাবি মিথ্যা বলে তার বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করেছেন তৃণমূল যুব সভাপতি জাকারিয়া হোসেন। সূত্রের খবর আগামী সাতদিন উত্তরবঙ্গে থাকবেন মাননীয় রাজ্যপাল।

একটি সাংবাদিক বৈঠকে রাজ্যবাসীদের উদ্দেশ্যে রাজ্যপাল বলেছেন, “মানবাধিকার লংঘন হলে চুপ থাকবেন না। আমি নন্দীগ্রামে গিয়েছিলাম, এখানেও এসেছি। ভোট-পরবর্তী সন্ত্রাস কবলিত প্রতিটি এলাকায় গিয়ে কয়েকটি প্রশ্ন করেছিলাম। পুলিশের কাছে গেলেন না কেন? উত্তর এসেছে সমস্যায় পড়তে হবে।” কিন্তু সমস্যা কেন বা কীভাবে সৃষ্টি হবে সেই নিয়ে কোনো উত্তর না পাওয়ায় তিনি আরো বলেছেন, “সরকারি আমলাদের কিছু বলা যাচ্ছে না। রাজ্যপাল কি বলছে সেটা শুনতে হবে না। আমি যে বলছি সেটা হিমশৈলের চূড়া মাত্র। আসল চিত্র আরো ভয়ঙ্কর। আমি মানুষের অধিকারের জন্য সব করব।” উত্তরবঙ্গ প্রসঙ্গে তিনি জানান উত্তরবঙ্গে অর্থনৈতিক বিকাশের অনেক সুযোগ রয়েছে। বর্তমানে বঙ্গভঙ্গের যে ব্যস্ততা চলছে রাজনৈতিক মহলে সেই নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী কেন চুপ? কেন্দ্র, সংবিধান, গণতন্ত্র, রাজ্যপালের সঙ্গে সবসময় সংঘাত করে লাভ নেই একথা জানিয়ে দিলেন রাজ্যপাল।

LEAVE A RESPONSE

Your email address will not be published. Required fields are marked *