Latest Trending Online News Portal : Bongobani.com

Sports News District News National News Updates

corona 2nd wave
রাজ্য

রংবাজিতে করোনা আর কড়ির থাবা

ছবি : গুগুল ইমেজের সৌজন্যো

সপ্তদর্শী : নীল দিগন্তে, ওই ফুলের আগুন লাগল…’। কবিগুরু লিখেছিলেন। মনের আনন্দে। সত্যিই তো! এ যে বড় আনন্দের উৎসব। তাই এই মরসুমে কোথাও একটু এদিক ওদিক হলে, বড় দুঃখ হয়। যেমনটা হচ্ছে এবার।

গতবছর তবু একটা অজুহাত ছিল। লকডাউন আসব আসব করছে। সবার মনই একটু যেন থমথমে হয়েছিল। কী জানি সরকার বাহাদুর কী পদক্ষেপ নেয়। আর সেই আশঙ্কাটা সত্যিও হয়েছিল। বছরভর আর কোনও উৎসবে যেন উদ্বেল হয়ে ওঠার সুযোগই পায়নি বাঙালি। এবছর কিন্তু তেমনটা নয়। আনলক প্রক্রিয়া চলছে। যদিও ফের বাড়ছে করোনা… । লাফিয়ে বাড়ছে করোনার নয়া স্ট্রেন…

গোছের ব্রেকিংয়ের দৌলতে, আবারও শুরু হয়েছে জল্পনা। আবার কি তবে লকডাউন?

তাহলে অন্তত দোলের দিনটা ছেড়ে দিয়ে, তারপরেই নাহয় জারি হোক। প্রার্থনা ছিল এমনই। যদিও সরকারি তরফে তেমন কোনও কড়া ঘোষণা এরাজ্যে অন্তত হয়নি। তবু দোল নিয়ে দোলাচলটা রয়েই গেছে। কোনও শর্ত আরোপ হবে? জিজ্ঞাসা সেটাই।

কিন্তু এসবকিছুকে ছাপিয়ে উঠছে আরও একটা প্রশ্ন। ঠিকঠাক রম খেলার সঙ্গতি সত্যিই বাঙালির আছে তো? বাজার কিন্তু সে কথা বলছে না। কারণ গতবছরের লোকসান মিটিয়ে, এবছর ফের রঙের বাজার মাথাঝাড়া দিয়ে যে উঠবে না, এনিয়ে ব্যবসায়ী মহলের কোনও সন্দেহ নেই। অন্যদিকে আমবাঙালির মনেও বেশ একটা মেজাজ এসেছে। আর তার হাত ধরে এসেছে খানিকটা সংশয়ও। দলবেধে দোল খেলতে গিয়ে করোনার শিকার হতে হবে না তো? আতঙ্কটা এখানেই। একে অর্থনীতির নাভিশ্বাস, জিনিসপত্রের মূল্যবৃদ্ধি। তার মধ্যে থেকেই প্রয়োজনীয় বিনোদনের পরিসরটা বের করে আনাটাই ছিল, ঠিকঠাক বাঙালি দস্তুর। এবছর সেই নড়বড়ে পকেটের দোসর হয়েছে, রিটার্ন অফ করোনা।

এটা যদি একদিকের ছবি হয়, তবে ক্যানভাসের অন্যদিকের ছবিটাও মোটেই উজ্জ্বল নয়। বরং অনেক অনেকবেশি ফিকে দেখাচ্ছে, ব্যবসায়ীদের মহল্লা। মালপত্তর আছে। কিন্তু আরও বাহারি রং তোলার মানসিকতা, বেশ ধাক্কা খেয়েছে। কারণ ঝুঁকির আশঙ্কা। যদি বেচাকেনা তেমন না-হয়। গতবছরের লোকসানটাই যে আড়েবহরে আরও বড় হয়ে ঘাড়ে চেপে বসবে! অতএব দিনের শেষে দোল এল বটে। কিন্তু রঙের রংবাজি যে এবার আর তেমন দমদদার হবে না, বাজার ঘুরে কিন্তু তেমনটাই ছবিটাই নজরে পড়ল।

ছবি – তাপস দাস

LEAVE A RESPONSE

Your email address will not be published. Required fields are marked *