www.bongobanii.com, www.bongobanii.com, www.bongobanii.com, www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com www.bongobanii.com, শালবনি কোবরা ক্যাম্পে জওয়ানের আত্মহত্যা, করোনায় মৃতদের পরিবারকে দিতে হবে ক্ষতিপূরণ, কেন্দ্রকে নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের, কসবা কাণ্ডে অভিযুক্ত দেবাঞ্জন দেবকে মনোরোগী বলে দাবি করলেন আইনজীবী, বালি তোলা সহ নানা সমস্যার সমাধান করতে হবে বৈঠকে বললেন মন্ত্রী মানস ভুঁইয়া, পরিত্যক্ত পিপিই কিট পরে শহরের রাস্তায় ঘুরছে মানসিক ভারসাম্যহীন, আতঙ্ক মেদিনীপুরে, জনপ্রিয় অভিনেতা বর্তমানে মাছ ব্যবসায়ী,

Latest Trending Online News Portal : Bongobani.com

Sports News District News National News Updates

সাহিত্য ও বিনোদন

জনপ্রিয় অভিনেতা বর্তমানে মাছ ব্যবসায়ী

বঙ্গবাণী ব্যুরো নিউজ: অভিনেতা হওয়ার নেশায় বুঁদ অরিন্দমকে এক ঝটকায় বাস্তবের মাটিতে এনে দাঁড় করালো অতিমারী পরিস্থিতির খাদ্য সংস্থান এর অভাব। অভিনয়ের রঙ্গমঞ্চ ছেড়ে সে এখন জীবনের রঙ্গমঞ্চে একজন মাছ বিক্রেতার ভূমিকায়। বাবা পেশায় সবজি বিক্রেতা হলেও বছর ৩৩ এর যুবক অরিন্দম প্রামানিক তার নেশা অভিনয়কে পেশা হিসেবে বাছতে চেয়েছিল। কিন্তু অভাব খুব বেশিদিন তার নেশাকে পেশা করায় সাথ দিল না।

একাধিক সিনেমা ও ধারাবাহিকে একাধিক চরিত্রে অভিনয় করলেও অতিমারি পরিস্থিতিতে তাকে পেশা বদল করতেই হয়। অভিনেতা হওয়ার স্বপ্ন ছেড়ে সে এখন সে এখন মেমারি স্টেশন বাজারে প্রতিদিন সকালে মাছ বিক্রি করেন।

গতবছর লকডাউন এর সময় টলিপাড়া ছেড়ে তিনি তার মেমারির বাড়িতে চলে আসেন । তখনও তিনি জানতেন না যে এভাবেই ইতি ঘটবে তার অভিনয়ের।

অভিনয় ছেড়ে একেবারেই মাছওয়ালা হয়ে ওঠাটা সহজ ছিল না। কিন্তু অভাবের তাড়নায় তিনি বাধ্য হন তা মেনে নিতে। বাবার সবজির দোকানকে পরিণত করেন মাছের দোকানে কারণ লকডাউন এর জেরে তার অভিনয়ের সুযোগও সেরকম আসছিল না এবং বাবার ৪০ বছরের পুরনো সবজির দোকানেও তেমনভাবে বিক্রিবাটা হচ্ছিল না । তাই যেখানে তাঁর অভিনয় ছিল তাদের সংসারের মূল উপার্জন সেখানে সংসারের দায়িত্ব নিতে অরিন্দমকে এই লড়াইটা লড়তেই হত।

অরিন্দমের কথায়, “প্রথম পর্বের লকডাউনের শেষে যখন অর্ধেক ইউনিট নিয়ে কাজ শুরু হয়, তখন ফের টলিপাড়ায় তার ডাক এসেছিল অভিনয়ের। কিন্তু ততদিনে মাছের ব্যবসাটা ধীরে ধীরে গুছিয়ে নিয়েছি। যার ফলে আর ভরসা করে ফিরতে পারিনি । পরিবারের এটাই একমাত্র আয়ের এর উৎস। তাই এটা ছেড়ে স্বপ্নের পেশায় যাওয়ার ঝুঁকি নিতে পারিনি। তাই বর্তমানে আমার স্বপ্ন পেশা কমিশনে মাছের আড়তে মাছ বিক্রি করা।”

একাদশ শ্রেণীতে পড়াকালীন নাট্যকার নির্দেশক চন্দন সেনের নাটকের দলে অরিন্দমের অভিনয়ের হাতেখড়ি । ২০১১ সালে এপার বাংলা ও ওপার বাংলার দর্শকদের তিনি মুগ্ধ করেন সুবর্ণলতা মেগাসিরিয়ালে তার ‘খোকা’ চরিত্রের মাধ্যমে। তারপর রাশি ,অগ্নিপরীক্ষার মতো জনপ্রিয় ধারাবাহিক এবং তোর নাম , হারকিউলিসের মতো কয়েকটি চলচ্চিত্রেও গুরুত্বপূর্ণ অভিনয়ের সুযোগ পান তিনি‌। সাবিত্রী চট্টোপাধ্যায়, বিশ্বনাথ বসু এবং অনন্যা চট্টোপাধ্যায় এর সাথে তার ভালো অভিনয়ের জন্য ধীরে ধীরে কাজের সুযোগ বাড়তে থাকে। কিন্তু এই পরিস্থিতি সেই সব ভুলিয়ে তাকে পরিণত করেছে এক পরিণত মাছ ব্যবসায়ীতে। যেখানে মাছ কিনতে আসা ক্রেতাদের উপরি পাওনা থাকে হাসিমুখে অরিন্দমের অভিনয়ের দু এক লাইন সংলাপ। তার এই জীবন সংগ্রাম এলাকার মানুষের কাছে এখন দৃষ্টান্ত।

LEAVE A RESPONSE

Your email address will not be published. Required fields are marked *