হুল উৎসব থেকে তির-ধনুক নিয়ে হামলা, তিরবিদ্ধ উপ-প্রধানের ভাই, শালবনি কোবরা ক্যাম্পে জওয়ানের আত্মহত্যা, করোনায় মৃতদের পরিবারকে দিতে হবে ক্ষতিপূরণ, কেন্দ্রকে নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের, কসবা কাণ্ডে অভিযুক্ত দেবাঞ্জন দেবকে মনোরোগী বলে দাবি করলেন আইনজীবী, বালি তোলা সহ নানা সমস্যার সমাধান করতে হবে বৈঠকে বললেন মন্ত্রী মানস ভুঁইয়া, পরিত্যক্ত পিপিই কিট পরে শহরের রাস্তায় ঘুরছে মানসিক ভারসাম্যহীন, আতঙ্ক মেদিনীপুরে, জনপ্রিয় অভিনেতা বর্তমানে মাছ ব্যবসায়ী, হলফনামা জমা দেবার ক্ষেত্রে জরিমানা দিতে হল পাঁচ হাজার টাকা, আজ ঘোষণা হতে পারে নারদ মামলার রায়, বুধবার থেকে পনেরো শতাংশ ভাড়া বাড়ছে ওলা উবেরের,

Latest Trending Online News Portal : Bongobani.com

Sports News District News National News Updates

স্বাস্থ্যের খুঁটিনাটি

“ছয় থেকে আট সপ্তাহের মধ্যেই করোনার তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়বে” – এইমসের প্রধান রণদীপ গুলারিয়া

বঙ্গবাণী ব্যুরো নিউজ: এইমসের প্রধানের বক্তব্য সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বর নয়, দেড় মাসের মধ্যেই আসতে পারে করোনার তৃতীয় ঢেউ। তাই সরকার এবং সাধারণ মানুষদের আরও সাবধানতা অবলম্বন করা প্রয়োজন।

বিশেষজ্ঞরা আগেই জানিয়েছিলেন করোনা ভাইরাসের তৃতীয় ঢেউ আসতে পারে সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বরের মধ্যে। তৃতীয় ঢেউতে আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা রয়েছে শিশুদের। এইমসের প্রধান রণদীপ গুলেরিয়া জানিয়েছেন আগামী ছয় থেকে আট সপ্তাহের মধ্যেই ভারতে ছড়িয়ে পড়বে করোনার তৃতীয় ঢেউ।

লকডাউন থেকে শুরু করে হাজার সাবধানতা অবলম্বন করলেও তা এড়ানো যাবে না। করোনার তৃতীয় ঢেউয়ে রয়েছে ডেল্টা প্লাস ভ্যারিয়েন্ট। করোনা ভাইরাসের অন্যান্য ডেল্টা, আলফার চেয়ে বেশি ক্ষমতা সম্পন্ন। তাই এখনও পর্যন্ত টিকাকরণই একমাত্র লড়াইয়ের উপায় বা হাতিয়ার বলে পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। করোনার সংক্রমণ দেশে কমতেই বিভিন্ন জায়গায় আনলক প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে ইতিমধ্যেই দিল্লিতে সমস্ত ব্যবস্থাই অনেকটা শিথিল। আর এই শিথিলতাতেই রয়েছে বিপদ।

ডাক্তার রণদীপ গুলেরিয়া সংবাদমাধ্যমে সাক্ষাৎকারে বলেছেন “লকডাউনের পর এই যে আনলক পর্ব তাতেই কোভিড বিধি একধাক্কায় ভেঙে ফেলার আশঙ্কা থাকে। আমরা প্রথমবারের থেকে কিছুই শিখিনি দ্বিতীয় ধাক্কাতেই তা বোঝা গিয়েছে। ফলে আশা করা যায় না যে করোনার তৃতীয় ধাক্কা এড়াতে সকলেই খুব সাবধানতা অবলম্বন করবেন। তবে অবশ্যই যথাযথ বিধি মেনে ভিড়, জমায়েত এড়িয়ে চলতে পারলে অনেকটাই সহজ হবে এর মোকাবিলা করা।” দেশবাসীর দ্রুত টিকাকরণ প্রয়োজন। এখন অব্দি দেশের মাত্র পাঁচ শতাংশ লোকেরই টিকাকরণ হয়েছে। টিকাকরণের হার বৃদ্ধি না পেলে তৃতীয় ঢেউয়ে আরও বড় আকারের মহামারীর জন্য প্রস্তুত হতে হবে ভারতকে।

LEAVE A RESPONSE

Your email address will not be published. Required fields are marked *