Latest Trending Online News Portal : Bongobani.com

Sports News District News National News Updates

এই মুহূর্তে জেলা রাজ্য

নারদ মামলায় মুখ্যমন্ত্রী, আইনমন্ত্রী সহ সাংসদের বিরুদ্ধেও অভিযোগ দায়ের করল সিবিআই

বঙ্গবাণী ব্যুরো ডেস্ক:নারদ মামলায় ফের নাটকীয় মোড়। সোমবার রাজ্যের তিন মন্ত্রী সহ এক প্রাক্তন মন্ত্রীকে গ্রেফতারের পর  মুখ্যমন্ত্রী, আইনমন্ত্রী সহ সাংসদের বিরুদ্ধেও আদালতে অভিযোগ জমা করল সিবিআই। যা নিয়ে রীতিমত চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে রাজ্য-রাজনীতিতে।

নারদ মামলায় সোমবার চার অভিযুক্ত হেভিওয়েট নেতাদের নিজাম প্যালেসে নিয়ে আসার কিছুক্ষনের মধ্যেই উপস্থিত হয়েছিলেন  মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সিবিআই জানিয়েছে, অভিযুক্তরা যেখানে ছিলেন সেখানে গিয়ে তাঁদের পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। সেদিন তিনি অভিযুক্ত ঐ চার নেতাদের মুক্তির দাবীও জানাতে থাকেন।এছাড়াও শুনানি চলাকালীন আদালতে হাজির ছিলেন আইনমন্ত্রী সহ একাধিক মন্ত্রী। পাশাপাশি সিবিআই আরও অভিযোগ করে, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেই নিজাম প্যালেসে চলে আসায় পরিস্থিতি জটিল হয়েছে। একই সঙ্গে সিবিআই জানিয়েছে যে, সিবিআই অফিসারদের বিরুদ্ধে বিপর্যয় মোকাবিলা আইনের ধারায় মামলা করার হুমকিও দিয়েছেন তিনি। এরপই তিনি ধর্নায় বসেন। একই সঙ্গে নিজাম প্যালেসের বাইরে সুপরিকল্পিত ভাবে জনসমাগম করা হয় যাতে অভিযুক্তদের আদালতে নিয়ে যেতে যাতে অসুবিধা হয়। এই বিষয়টি সিবিআই সঠিক ভাবে মেনে নেয় নি। সিবিআইয়ের তরফ থেকে আরও জানানোও হয়েছে, সোমবার রাজ্যের চার হেভিওয়েট নেতাকে নিজাম প্যালেসে গ্রেফতার করার পর মুখ্যমন্ত্রী নিজাম প্যালেসে হাজির হওয়ার পর মামলার শুনানির সময়ে উপস্থিত হন আইনমন্ত্রী মলয় ঘটক। আইনমন্ত্রী মলয় ঘটককে সেইজন্য পক্ষ হিসেবে যুক্ত করেছে সিবিআই। একই কারণে কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়কেও এই মামলায় পার্টি করা হয়েছে।  কেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজাম প্যালেসে গিয়েছিলেন পাশাপাশি ৬ ঘণ্টা ধর্না দেওয়া বিষয়ে রীতিমত প্রশ্ন তুলেছে বিরোধী দলগুলি।

তবে সিবিআইয়ের তরফ থেকে জানানোও হয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজাম প্যালেসে ধর্নায় বসেছিলেন। তবে ক্যামেরায় এই বিষয়টি ধরা পরে নি। পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রী কর্মীদের কোনও নির্দেশ দিয়েছেন এই বিষয়েও কোনও ফুটেজ সামনে আসেনি।একই সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজাম প্যালেসে প্রবেশ করা বা বেড়ানোর সময় সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে কোনও কথা বলেন নি। সিবিআয়ের তরফ থেকে এই ধরেন মন্তব্যকে ঘিয়ে উঠছে একাধিক প্রশ্ন।

LEAVE A RESPONSE

Your email address will not be published. Required fields are marked *