হুল উৎসব থেকে তির-ধনুক নিয়ে হামলা, তিরবিদ্ধ উপ-প্রধানের ভাই, শালবনি কোবরা ক্যাম্পে জওয়ানের আত্মহত্যা, করোনায় মৃতদের পরিবারকে দিতে হবে ক্ষতিপূরণ, কেন্দ্রকে নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের, কসবা কাণ্ডে অভিযুক্ত দেবাঞ্জন দেবকে মনোরোগী বলে দাবি করলেন আইনজীবী, বালি তোলা সহ নানা সমস্যার সমাধান করতে হবে বৈঠকে বললেন মন্ত্রী মানস ভুঁইয়া, পরিত্যক্ত পিপিই কিট পরে শহরের রাস্তায় ঘুরছে মানসিক ভারসাম্যহীন, আতঙ্ক মেদিনীপুরে, জনপ্রিয় অভিনেতা বর্তমানে মাছ ব্যবসায়ী, হলফনামা জমা দেবার ক্ষেত্রে জরিমানা দিতে হল পাঁচ হাজার টাকা, আজ ঘোষণা হতে পারে নারদ মামলার রায়, বুধবার থেকে পনেরো শতাংশ ভাড়া বাড়ছে ওলা উবেরের,

Latest Trending Online News Portal : Bongobani.com

Sports News District News National News Updates

জেলা

বেঁচে থাকার লড়াই থেকে ভোটের যুদ্ধ সর্বত্রই এগিয়ে চণ্ডী

বঙ্গবাণী ব্যুরো ডেস্ক:- সকাল থেকে রাত ,প্রচারেই সময় কেটে যাচ্ছে চণ্ডীচরণ লেটের। বর্ধমান উত্তরের সিপিএম প্রার্থী। বয়স ত্রিশ ছুঁই ছুঁই,পরনে লাল পাঞ্জাবি আর পায়ে চটি গলিয়ে প্রাচারে বেরিয়ে পড়ছেন গ্রামের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে। এই বছর নির্বাচনে বামেরাও সামনে এনেছে তরুণ মুখ, চণ্ডী হলেন তাঁদের মধ্যে অন্যতম। প্রখর রোদ গরমকে উপেক্ষা করেই প্রচার চালাচ্ছেন পায়ে হেঁটে।প্রচারে মাঝে মধ্যেই বয়স্করা তাকে কাছে টেনে নিয়ে মাথায় হাত তুলে আশীর্বাদ করছে। আবার কেউ মাথায় ফুল ছেটাছেন কেউ বা পরিয়ে দিচ্ছেন মালা। পেটে খিদের জ্বালা নিয়ে হাসিমুখে কড়জোড়ে সকলের কাছে এগিয়ে যাচ্ছেন তিনি। ছোটো থেকেই সে পড়ার ফাঁকে বাবার সাইকেলের দোকানে কাজ সামলান,মা অন্যের বাড়িতে পরিচারিকার কাজ করে যেটুকু উপার্জন করে তাতেই সংসার চলে কোনোরকমে। অভাব জিনিসটা ঠিক কি সেটা খুব কাছ থেকে দেখেছেন চণ্ডী। দারিদ্রতার সঙ্গে লড়াই করে বড়ো হয়ে উঠেছেন তিনি। তার গোটা বাড়ি জুড়ে দারিদ্রতার চিহ্ন এখনও স্পষ্ট। চণ্ডী জানিয়েছেন ‘ছোটো থেকেই লড়াই করে বড়ো হয়ে ওঠা আমার,তাই মানুষের দুঃখ আমার চেনা। প্রার্থী হিসেবে নাম ঘোষণা হবার পর থেকেই সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়াতে নেমে পড়েছি ময়দানে। ‘

বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে এম ফিল পাশ করেছেন চন্ডী ।করোনা আবহ না এলে হয়ত এতদিনে সে পি এইচ ডি টাও করে ফেলত। বাংলায় বর্তমান দিনে বাড়ছে বেকারত্বের সংখ্যা। চণ্ডী নিজেও এম ফিল পাশ করে চাকরি পায়নি। তবে তাঁর প্রচারে এবং বক্তৃতা ফুটে উঠেছে দুই সরকারেরই বেকারদের নিয়ে রীতিমত ছিনিমিনি খেলার কথা। আর এই ভয়ঙ্কর অবস্থারই বদল চেয়েই তিনি ভোট দেওয়ার আহ্বান করছেন সস্মত মানুষের কাছে। একই সঙ্গে সমাজে পরিবর্তন আনার লড়াই তিনি খুব নিষ্ঠার সঙ্গে লড়ছেন।


প্রসঙ্গত, পরিবারের কেউ রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত না থাকলেও লেট কিন্তু কলেজ জীবন থেকেই রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত।ছাত্র রাজনীতি থেকে শুরু করে সোজা আজ সে একুশের ভোটের ময়দানে। প্রার্থী হিসাবে ইতিমধ্যেই নাম কুড়িয়েছেন বিরোধী পক্ষের দলনেতাদের থেকেও।আর সাধারণ মানুষের কাছে তো সে একদমই কাছের মানুষ হয়ে উঠেছে এই কদিনের মধ্যেই। নির্বাচনী প্রচারে বেরিয়ে লেট সেটা ভালোমতোই টের পাচ্ছেন বলে দাবী করেছেন।তবে আম জনতার সেই ভালোবাসা কতটা গভীর তা ইভিএমের বাক্সই যথার্থ উত্তর দেবে।

LEAVE A RESPONSE

Your email address will not be published. Required fields are marked *