Latest Trending Online News Portal : Bongobani.com

Sports News District News National News Updates

দেশ রাজ্য

জলের যথেচ্ছ অপচয়ই কি অস্তিত্ব সংকটের কারণ হয়ে দাঁড়াবে?

বঙ্গবাণী ব্যুরো নিউজ : বহুদিন ধরে গোটা দেশ জলের সংকটে ভুগছে। গ্রামীণ এলাকার বিভিন্ন জায়গায় এখনও মাটির তলার জল পরিশোধিত না করে ব্যবহার করা হচ্ছে। ভূগর্ভস্থ জল পাম্প মেশিনের দ্বারা তুলে যেভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে তা দেখে বোঝাই যায় অদূর ভবিষ্যতে প্রাণীজগতের অস্তিত্ব নিশ্চিহ্নের মুখে। প্রাকৃতিক সম্পদের অপব্যবহার এবং প্রকৃতি দূষণের ফলে লবণের মাত্রা বেড়ে যেতে পারে ভূগর্ভস্থ জলে এছাড়াও ভূগর্ভস্থ জলের পরিমাণ কমতে থাকছে বহুদিন ধরেই। পশ্চিমবঙ্গও এর ব্যতিক্রম নয়।

২০১৯ সালে জল সংকট মোকাবিলায় পথে নেমে ছিলেন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তারই উদ্যোগে এই রাজ্যে ১২ই জুলাই জল বাঁচাও দিবস পালিত হয়। সেদিন তৃণমূলের নেতা মন্ত্রী ও কিছু বুদ্ধিজীবিদের সাথে পথে হেঁটে তিনি বলেন “অনেকেই প্রতিশ্রুতি দিয়ে পূরণ করে না আমি প্রতিশ্রুতি দিলে পূরণ করি জল সংরক্ষণের জন্য জল ধরো জল ভরো প্রকল্প করেছি।” মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই প্রকল্পকে স্বাগত জানিয়েছিলেন বহু বিশিষ্ট ব্যক্তিত্বরা। পৃথিবী যদি জল শূন্য হয়ে যায় তাহলে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের টিকে থাকা অসম্ভব। এই সমস্যা ঠেকাতে গাছের প্রয়োজনীয়তাও ভীষণ। তাই জলের পাশাপাশি সবুজ বাঁচানোর আর্জিও করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। ২০১৯ সালেই নীতি আয়োগের রিপোর্টে তখন বলা হয়েছিল ২০২১ সালের মধ্যে দিল্লি, বেঙ্গালুরু, চেন্নাই এবং হায়দ্রাবাদের মতো বিশেষ কিছু শহরে ভূগর্ভস্থ জল ফুরিয়ে যাবে। বিভিন্ন জায়গায় সমীক্ষা চালিয়ে দেখা গেছে যে ২০০১ সাল থেকেই পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের ভূগর্ভস্থ জলের স্তর বিভিন্ন জায়গায় কমতে শুরু করে দিয়েছে ।

যদিও পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের তরফ থেকে বিভিন্ন জায়গায় কোটি কোটি টাকা খরচ করে মিউনিসিপালিটি কলের ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু সাধারণ মানুষের যথেচ্ছ ব্যবহারের ফলে সেই জলের কমতি দেখা দিচ্ছে। এমনিতেই পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের জলের চাহিদার মোট ৪০ শতাংশই মেটায় ভূগর্ভস্থ জল এরই ফলে যদি ভূগর্ভস্থ জলের পরিমাণ কমতে শুরু করে বহু সমস্যায় পড়বেন সাধারণ জনগণ।

পশ্চিমবঙ্গের বর্তমান পঞ্চায়েত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায় কদিন আগেই একটি সাক্ষাৎকারে জানিয়েছিলেন যে পৃথিবীতে আর কদিন পর শুধুমাত্র মিষ্টি জলের চাহিদার জন্যই চতুর্থ বিশ্বযুদ্ধ বাঁধবে। একটি সমীক্ষায় জানা গেছে ২০৫০ সালের মধ্যেই উত্তর ও পশ্চিম ভারতের একটা বড় অংশকে এক সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে এবং সেই সমস্যার কারণ হবে শুধুমাত্র জলের অপচয়। এরই সাথে সমস্যায় পড়বে দিল্লি, লুধিয়ানা, জয়পুর এবং অমৃতসরের মত ভারতের মোট ২৬ টি রাজ্য। সুতরাং ভূগর্ভস্থ জলের পরিমাণ কমে যাওয়া পশ্চিমবঙ্গ তথা ভারতের পক্ষে বেশ উদ্বেগের ।

LEAVE A RESPONSE

Your email address will not be published. Required fields are marked *